আলোকস্তম্ভ কবিতা । জীবনানন্দ দাশ । পাণ্ডুলিপি কাব্যগ্রন্থ,২০০৫

আলোকস্তম্ভ কবিতাটি কবি জীবনানন্দ দাশ এর পাণ্ডুলিপি কাব্যগ্রন্থের ১০ম খণ্ডে রচিত। যা ২০০৫ সালে প্রকাশিত হয়। গৌতম মিত্র ও ভূমেন্দ্র গুহ-এর সাথে যৌথ সম্পাদনায় এটি প্রকাশিত হয়। কবির অগ্রন্থিত কবিতাবলি নিয়ে প্রকাশিত কবিতা সংকলনগুলোর একটি হলো পাণ্ডুলিপি। এই গ্রন্থটি মোট ১৪টি খণ্ডে বিভক্ত রয়েছে।

 

আলোকস্তম্ভ কবিতা । জীবনানন্দ দাশ । পাণ্ডুলিপি কাব্যগ্রন্থ,২০০৫

 

আলোকস্তম্ভ কবিতা

কবিতা: আলোকস্তম্ভ কবিতা
কবির নাম: জীবনানন্দ দাশ
কবি: জীবনানন্দ দাশ
কাব্যগ্রন্থের নাম: পাণ্ডুলিপির কবিতা

 

আলোকস্তম্ভ কবিতা । জীবনানন্দ দাশ । পাণ্ডুলিপি কাব্যগ্রন্থ,২০০৫

 

কোথাও আলোকস্তম্ভ র’য়ে গেছে সমুদ্রের জলে।
নক্ষত্রেরা বিস্ময়ে বিভোর হয়ে আকাশের তলে
চেয়ে থাকে; স্তম্ভের প্রকোষ্ঠে রেখে প্রায়ান্ধ মানুষ
সাগরে অসংখ্য পোত চালায়ে নিতেছে দরায়ুস।

ধূসর গাধার পিঠে- তবুও গাধার থেকে ফিকে
মূর্খ এক ব’সে আছে শিষ্ট রূপসিকে
কোলে ক’রে। মনীষী ব্রহ্মাণ্ডে মাপে বিচ্ছেদের মানে।
আমাদের প্রেম, শান্তি, সৌন্দর্য এখানে।

এইখানে হেমন্তের অন্ধকারে তিত্তিরাজগাছের ছায়ায় মনে হয়
পৃথিবীর নীচে সব অন্তরীণ ভূত কথা কয়:
‘যত বড়ো হোক না ক’ অন্ধকার, ক্বাথ
সৃষ্টির ভিতরে তবু কিছুই সুদীর্ঘতম নয়।’

ভোরবেলা নগরীর বড়ো রৌদ্র হয়ে ওঠে অধিক বিশাল;
ভবঘুরে ভিড় তবু পদে-পদে চলে
ভুল ক’রে- নীলিমার নীচে ব’সে থেকে;-
যেন এই রক্ত, ভুল, গুনাগার সৃষ্টির কথা চির-কাল।

যতই বৃহৎ আরও হোক না ক’ রসাতলে ভূতেদের রাত:
সৃজনের ঘুরুনিতে সেই একঘেয়েমির ধাত
নিজেকে নতুন করে;- সৃষ্টির দীর্ঘতম নীলিমার দিনে
আমাদের নগরীর ধোঁয়া শুধু সাড়ে-তিন হাত।

 

আলোকস্তম্ভ কবিতা । জীবনানন্দ দাশ । পাণ্ডুলিপি কাব্যগ্রন্থ,২০০৫

 

জীবনানন্দ দাশ ১৮৯৯ খ্রিষ্টাব্দের ১৮ ফেব্রুয়ারি ব্রিটিশ ভারতের বেঙ্গল প্রেসিডেন্সির (বর্তমানে বাংলাদেশ) অন্তর্গত বরিশাল শহরে জন্মগ্রহণ করেন৷ তার পূর্বপুরুষগণ বাংলাদেশের ঢাকা জেলার বিক্রমপুর(বর্তমান মুন্সীগঞ্জ) পরগণার কুমারভোগ নামক স্থানে “গাওপারা” গ্রামের নিবাসী ছিলেন যা পদ্মায় বর্তমানে বিলীন হয়ে গেছে৷ স্থানটি মুন্সিগঞ্জের লৌহজং উপজেলায় অবস্থিত৷

তার পিতামহ সর্বানন্দ দাশগুপ্ত (১৮৩৮-৮৫) বিক্রমপুর থেকে বরিশালে স্থানান্তরিত হন৷সর্বানন্দ দাশগুপ্ত জন্মসূত্রে হিন্দু ছিলেন; পরে ব্রাহ্মধর্মে দীক্ষা নেন৷ তিনি বরিশালে ব্রাহ্ম সমাজ আন্দোলনের প্রাথমিক পর্যায়ে অংশগ্রহণ করেন এবং তার মানবহিতৈষী কাজের জন্যে ব্যাপকভাবে সমাদৃত হন৷

Leave a Comment